আমাদের শেয়ার্ড বাথরুম


আমার বোন তিশা, সত্যিকারের আগুনের গোলা। বয়সন্ধিকালে সে ফুটে উঠতে শুরু করল, যেন সবচাইতে সুন্দও ফুলটা কুঁড়ি থেকে ফুটে উঠতে শুরু করেছে। শরীরের এখানে সেখানে তার বেড়ে উঠা, কোথাও বা সরু হয়ে যা্ওয়া এবং গোলাকার আকৃতি পা্ওয়া সবই স্পষ্ট থেকে স্পষ্টতর হয়ে উঠতে শুরু করল। সে এখন আঠার, আমার থেকে দুই বৎসরের ছোট, আমার দেখা অনেক সুন্দরী মেয়েদের চাইতে সে অনেক অনেক সুন্দর। Continue reading

ম্যাচের দিন


সকাল থেকেই মেঘলা করে আছে | বৃষ্টি হলে আজকে ক্রিকেট ম্যাচ টা ভেস্তে যাবে | শুয়ে শুয়ে এইসমস্তই ভাবছিলাম | দুটো থেকে ম্যাচ শুরু তাই বারোটার মধ্যে খাওয়া দাওয়া সেরে একটু বিশ্রাম নিচ্ছিলাম | রাহুলকে বলা আছে, আমাকে দেড়টার মধ্যে ডেকে নেওয়ার জন্য | রাহুল আমার বন্ধু ও আমাদের ক্লাবের ওপেনার ও বটে | লাস্ট ম্যাচে ও আর আমি জুটিতে পঁচাশি রান তুলে ম্যাচ জিতিয়েছিলাম | তারপর থেকেই আমাদের দারুন কদর বেড়ে গেছে | এইসব আবোল তাবোল ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে পরেছি জানিনা | ঘুম ভাঙ্গতেই ধড়মড় করে উঠে বসলাম | ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম দুটো বেজে পাঁচ | কোনরকমে চোখে মুখে জল দিয়ে নিচে নেমে মাকে জিজ্ঞাসা করলাম কেউ ডাকতে এসেছিল কিনা | আসেনি শুনে আরো অবাক হলাম | রাহুলটা এমন করলো কেন? সাইকেলটা কাল বিকেলে বিগড়েছে, সারানো হইনি | নিজের ওপর আরো রাগ ধরল | ওরা নিশ্চই বাইক নিয়ে এতক্ষণ মাঠে পৌঁছে গেছে | কোনক্রমে ব্যাট টা নেয়ে রাহুলের বাড়ির দিকে হাঁটা লাগলাম | আমাদের বাড়ি থেকে ওদের বাড়ি বেধি দুরে নয়, হাঁটলে মিনিট সাতেক লাগে | কিন্তু কপাল খারাপ, খানিক দূর যেতেই শুরু হলো ধুলোর ঝড় ! মহা মুশকিল | ভয়ে কোনো বড় গাছের নিচেও দাড়াতে পারছি না | এদিকে ধুলোর চোটে চোখমুখ খোলা যাচ্ছেনা | রাহুলদের বাড়ি পৌঁছানোর আগেই নামল ঝরঝরিয়ে বৃষ্টি | কাকভেজা হয়ে ওদের বাড়ির সামনে এসে দেখি ওর বাইক টা নেই | তার মানে শয়তান টা চলে গেছে আমাকে না নিয়েই | এও রাগ হলো যে বলার নয় ! ছুটির দিন দুপুর বেলায় কোথায় ঘুমাবো তার বদলে ভিজে চান করে রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছি ! এখন বাড়ির সবাই ও শুয়ে পড়েছে, ডাকাডাকি করলে কপালে বিস্তর বকাঝকা আছে | দুপুরটা এখানেই কাটাতে হবে | এ বাড়িতে রাহুল ছাড়াও ওর দিদি অপর্ণা থাকে আর ওদের কাজের লোক পুর্নিমাদি | Continue reading