নমিতা


নমিতা – এই গল্পের নায়িকা, দেখতে শুনতে সাধারণ বাঙ্গালি মেয়ের থেকে খুব একটা আলাদা নয়।বয়স ২৬, লম্বায় ৫’২” ,মাঝারি গড়ন, রংটা ফর্সা না , একটু চাপার দিকেই ,এক ঢাল কালো চুল, ভারী চেহারা। আলাদা কোনো চটক না থাকলেও, চোখে একটা আত্মবিশ্বাসের ছাপ।পড়াশোনা এগারো ক্লাস অবধি , তার পরই সংসারের অভাবের তাড়নায় লোকের বাড়ীতে কাজ ধরে নেয়।হ্যাঁ ! নমিতা আমার বাড়ীতে কাজ়ের লোক হিসেবেই এসেছিল, আজ থেকে প্রায় তিন বছর আগে।
আমি অনিকেত , বয়স ৩০ , সাড়ে পাঁচ ফুট লম্বা, পেশীবহুল না হলেও কলেজ লাইফ পর্যন্ত ফুটবল খেলার জন্য শরীরটা ফিট আছে এখনও।
তখন আমি শিলিগুড়িতে – বিডিও অফিসে চাকরী পেয়ে কোলকাতার বাইরে প্রথম বার। পড়াশোনাতে ভাল ছিলাম , কিন্তু তেমন ভালো চাকরী বাগাতে পারছিলাম না – ইন্টারভিউ দিতে গেলেই আমার সব গুলিয়ে যেত। শেষ মেষ শুরু করলাম p s c এর পরীক্ষা দেওয়া।বেশ কিছুদিন রগড়ানোর পর এই চাকরীটা পেলাম। সঙ্গে সঙ্গে কোলকাতা ছেড়ে শিলিগুড়ি ।বাড়ি থেকে আপত্তি ছিল প্রচুর – আর ভাল চাকরী পাবে ছেলে এই ভরসায়।আর আপত্তি ছিল আমার প্রেমিকার – সোনালীর , ওর কথায় পরে আসছি।
একা মানুষ , তাই এক বেডরুমের ফ্ল্যাট নিলাম কলেজ পাড়ায়।ফ্ল্যাটট� � চার তলায়, তার উপরে আর কোনো ফ্ল্যাট নেই, খোলা ছাঁদ। লিফট নেই , তাই ভাড়া একটু কম। আমার উলটো দিকের তিন বেডরুমের ফ্ল্যাটটা ফাঁকা, শুনেছি গ্যাংটকের কোনো ব্যবসায়ীর ওটা , ন’মাসে ছ’মাসে এসে থাকে । Continue reading

কাজের বুয়াকে চুঁদেছি।


আমি চট্রগ্রামে গিয়েছিলাম একটা চাকুরীর জন্য, কিন্তু মনে হলো না যে চাকুরী আমার হবে কিন্তু হঠাৎ করে আমার চাকুরী হয়ে গেলো এবং পরে এসে মেসে উঠলাম দুই বন্ধুর কাছে। ওরা দুইজন আগে থেকেই মেসে থাকতো। সারাদিন চাকুরি করে এসে বাসাই আগে চলে আসি । বাসাই একটা কাজের বুয়া দুই বেলা রান্না করে দিয়ে যায়। বন্ধুরা বাসায় ফিরতে ফিরতে রাত ৯টা বেজে যায় প্রতিদিন। সে জন্য একজন বুয়াকে রাখা হলো যে রান্নার জন্য । বুয়ার রান্না করা খুব সমস্যা হয়ে পড়ছিলো, আমি সাড়ে ৫ টার পরে বাসায় আসার কারনে সবার খুব সুবিধা হল। আসলে কোন কোন দিন দেখি বুয়াটা দাড়িয়ে আছে। Continue reading

বন্যা আমার জীবনকে পুরো চেঞ্জ করে দিল


২০০১ সালের কথা। আমি মাত্র ক্লাস সেভেনে পড়ি। প্রচন্ড বন্যায় আমাদের বাড়ীর চাল পর্যন্ত পানির নিচে। বাধ্য হয়ে বাবা মা, বড় আপু, কাজের বুয়া আর দাদিকে নিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে উঠলেন। আশ্রয় কেন্দ্রে বেশিক্ষণ টিকা যাবে না ভেবে বাবা বিকল্প চিন্তা করতে লাগলেন। সবচেয়ে বেশি সমস্য দাদিকে নিয়ে। হরিবল সিচুয়েশন। there was water everywhere but not a drop to drink অবস্থা। অবশেষে আমাদের কাজের বুয়া যে প্রায় ৫০ বছরের বিধবা, মাকে প্রস্তাব দিল, তাদের বাড়ীতে যাওয়ার। প্রথমে ইতস্তত করলেও অবস্থা বুঝে আব্বা রাজি হলো। Continue reading