সিস্টারহুড


এডমন্টনের পাট চুকিয়ে টরোন্টোতে এসেছি তিনমাস হলো। ইউঅফটিতে তখন ঢুকতে চেয়ে পারি নি, আলবার্টাতে যেতে হয়েছিল, সেই দুঃখটা ছিল টরোন্টোর ওপর। চাকরী আর গার্লফ্রেন্ড জুটে যাওয়ায় বাঙালী সমাজের তোয়াক্কা না করে বেলার সাথে এপার্টমেন্টে উঠলাম। বেলা হচ্ছে ইসাবেলা মোরালেস আলবার্টায় আমার সাথেই পড়ত সেখানে থেকেই পরিচয়। ল্যাটিন মেয়েদের সাথে ভারতীয় উপমহাদেশের মেয়েদের অনেক মিল আছে। বেলা পেরুভিয়ান। লাইফে এই একজন মেয়েকে পেলাম যে জেনুইনলী আমার জন্য কেয়ার করে। ও আমার এক সেমিস্টার আগে কাজ পেয়ে এখানে এসেছে। থিসিসের জন্য সামারটা এডমন্টনে রয়ে যেতে হয়েছিল। মিসিসাগা আর ওকভিলের মাঝে এক বেড এক বাথের এপার্টমেন্ট। সকালে উঠে কোন রকমে সিরিয়াল গুজে অফিসে যাই, বেলাকে ড্রপ করে চার ব্লক পরে আমার অফিস, আবার সন্ধ্যায় ওকে পিক আপ করে টিভি দেখতে দেখতে রান্না। দেশের বাইরে এসে এই প্রথম সময়টা একটু এনজয় করতে শুরু করেছি। লিভটুগেদার অর হোয়াটেভার, ইট ফীলস গুড। আই লাভ হার, শী লাভস মী। ঢাকায় জানাইনি, জানানোর প্রয়োজনও দেখছি না। রাতে বেলাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে যাই, মাঝে মাঝে যখন টের পাই আমার গায়ে পা তুলে বেলাও আমাকে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে ঘুমাচ্ছে, তখন খুব শান্তি অনুভব করি।

টিভিতে চিলির মাইনারদের রেসকিউ দেখতে দেখতে বেলা বললো, কারমেন ইমেইল করেছে, নেক্সট উইকে আসবে। কারমেন মোরালেস, বেলার বড় বোন, ওর চেয়ে দশ বছরের বড়, মানে পয়ত্রিশের মত বয়স তো হবেই। জানি না ওদের দেশেও বয়স ভাড়ায় কি না, তাহলে আরো বড় হতে পারে। কারমেনের অনেকদিন থেকেই আসার কথা, শেষমেশ আসছে তাহলে। আমি খুব অস্বস্তি বোধ করতে লাগলাম। এত ছোট বাসা, এক্সট্রা একজন লোক এলে কোথায় থাকবে, আর ইন ল মার্কা লোকজন এসব ডীল করতে মন চাচ্ছিল না। মুখে কিছু বললাম না, বেলা মন খারাপ করতে পারে, কয়েক সপ্তাহ চোখ কান বুজে সহ্য করে যেতে হবে।

এয়ারপোর্টে পিক আপ করতে যেতে যেতে বেলা বললো, তানিম অনেস্টলী, তুমি কি রাগ হয়ে আছো?
– নো, নট এ্যাট অল, হোয়াই ডু ইউ থিংক সো
– উমম, গত কয়েকদিন ধরে গুম হয়ে আছো, কোথাও তাল কেটে গেছে
– লিটল এ্যাংশাস মে বি, ডোন্ট ওরি এবাউট ইট, আমার কখনো সিবলিং ছিল না হয়তো তাই
– আমার হয়তো উচিত হয়নি কারমনকে আমন্ত্রন জানানো

আমি খুব চেষ্টা চালালাম কথা যেন ঝগড়ায় মোড় না নেয়। আসলে দুজন মানুষ একসাথে থাকার মধ্যে কত কি যে আছে, যেগুলো স্রেফ ক্যাম্পাসে প্রেম করে শেখার উপায় নেই। ব্যাগেজ ক্লেইম থেকে কারমেনকে খুজে বের করলাম, এগার ঘন্টার ফ্লাইট, আমাদের ঢাকা জার্নির তুলনায় তেমন কিছু না, তবু বেশ টায়ার্ড দেখাচ্ছে। হাত মিলিয়ে বললাম, টানিম না বলতে হবে তানিম
– হোয়াট ডাজ ইট মীন
– স্ট্রেঞ্জলী, আই ডোন্ট নো Continue reading

মিনা-রাজু


প্রতিদিনকার মত ভোরে পাখির ডাক শুনে মিনার ঘুম ভাংলো। তবুও সে কিছুক্ষন শুয়ে রইল। গতকালের কথা মনে করে ওর মুখে এক চিলতে হাসি ফুটে উঠল। ও যখন বান্ধবীদের সাথে স্কুল থেকে ফিরছিল, খান সাহেবের ডাক্তার ছেলেটা ওর দিকে তাকিয়ে মৃদু হেসেছিল; তা দেখে ওর বান্ধবীরা হিংসায় মরে যায় আরকি। কিছুদিন হলো খান সাহেবের ছেলে শফিক গ্রামে বেড়াতে এসেছে। তার পর থেকেই সে যেখানেই যায় গ্রামের সব মেয়ের নজর তার দিকে ঘুরে যায়। নেহায়েৎ গ্রামের মেয়ে বলে লাজুক ভাবে তাকিয়েই শুধু তারা চোখের সুধা মেটায়, নাহলে হয়তো সারাদিন পিছে পিছেই ঘুরত। মিনাও তার জীবনে এত সুন্দর ছেলে দেখেনি। আর এত বিনয়ী। সেদিনই তো মিঠুর ডানায় আঘাত লাগায় ওর কাছে নিয়ে যাওয়াতে সুন্দর করে ব্যান্ডেজ করে দিয়েছিল; মিনা পাশে বসে লজ্জায় শফিকের দিকে তাকাতে পারছিলনা, কিন্ত ছেলেটি বারবার চোখ তুলে ওর দিকে তাকাচ্ছিলো। অবশ্য মিনাও এখন আর সেই ছোট্ট মেয়েটি নেই। ও এখন কলেজে পড়ে; কোমর পর্যন্ত লম্বা চুল, সারাদিনই কিছু না কিছু কাজ করতে হয় বলে গতানুগতিক গ্রামের মেয়েদের তুলনায় ওর অন্যরকম সুন্দর এক ফিগার হয়েছে। ওর দাদী বেড়াতে আসলে, যতদিন ওদের সাথে থাকে সে স্কুলে যেতে পারে না। ওর দুধ দুটো নাহয় একটু বড়ই, তাই বলে এটা কি ওর দোষ? দাদীর ধারনা ছেলেরা নাকি ওকে দেখলে বিগড়ে যাবে। তবে এই প্রথম এই একটা ব্যাপারে মিনা মনেমনে দাদীর সাথে একমত না হয়ে পারেনি। ও গ্রামে যেখানেই যায় ছেলেদের নজর থাকে ওর দিকে। এমনকি স্কুলেও ওর দিকে তাকিয়ে থাকে বলে ক্লাসের প্রায় সব ছেলে প্রতিদিন স্যারদের কাছে মার খায়। তবে মিনার এগুলো দেখতে মজাই লাগে। সেদিনই তো ওকে বাজে কথা বলাতে রাজু একটা ছেলেকে আচ্ছামতন পিটিয়েছে। রাজু এখন বলতে গেলে গ্রামের ছেলেদের সর্দার। তাই ওর বোন হিসেবে মিনাকে কেউ ঘাটাতে সাহস পায় না। কিন্ত মিনার অনেক বান্ধবীই এরই মধ্যে তাদের কুমারীত্ব বিসর্জন দিয়ে ফেলেছে, খুব যে অনিচ্ছায় তাও নয়। তারা ক্লাসের ফাকে সবাই রসিয়ে রসিয়ে যে যার গল্প বলে আর মিনা হা করে শুনে। ওরও খুব ইচ্ছে করে একটা ছেলে ওকে ধরে……কিন্ত রাজুর ভয়ে ছেলেরা ওর দিকে ঠিকমত চোখ তুলেই তাকাতে পারে না, কাছে আসবে কি! এইসব ভাবতে ভাবতে মিনা বিছানায় উঠে বসল। রাজু এখন কাছারী ঘরে শোয়। মিনা ক্লাস টেনে ওঠার পর থেকেই মা ওদের জন্য আলাদা ঘরের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। অবশ্য এমনিতেও মিনা-রাজুর মধ্যে ভাই বোনের সম্পর্কটা এখনো আগের মতই, ওরা দুজনে অনেক ফ্রি। তবে রাজু এরই মধ্যে পাশের গ্রামের সুমিকে দিয়ে ওর কুমারত্ব হরন করিয়েছে। ওকে এসে রাজু ঘটনাগুলো বলে আর মিনাও শুনে অনেক মজা পায়। এইসব ভাবতে ভাবতে বিছানা থেকে উঠতে গিয়ে মিনা দেখল চাদরটা রক্তে ভিজে আছে, ওর সালোয়ারটাও ভেজা। ও তাড়াতাড়ি সালোয়ারের ফিতা খুলে দেখল রাতে তাড়াহুড়ো করে সেনোরাটা ভালোমত লাগাতে পারেনি, তাই ফাক দিয়ে রক্ত পড়ে এই অবস্থা। তবে রক্ত পড়া বন্ধ হয়েছে দেখে ও স্বস্তির নিশ্বাস ছাড়ল। রাজুর এনে দেওয়া এই বিচ্ছিরি ন্যাপকিন পড়ে গত তিনদিন ধরে সে কলেজেও যেতে পারেনি। রক্তে ভরা নিজের কুমারী যোনিটার দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে রইল মিনা, তারপর বিছানার নিচ থেকে একটা পুরোনো ন্যাকড়া নিয়ে রক্ত মুছে নিল। তারপর একটা নতুন সালোয়ার কামিজ পড়ে বইখাতা নিয়ে বাইরে বেড়িয়ে এল। ও ফ্রক পড়া ছেড়েছে সেই ক্লাস সেভেনে উঠার পর থেকেই; কিন্ত ওর এখনো সেগুলি পড়তে ইচ্ছে করে; কারন ওর মত সুন্দর পা গ্রামের আর কয়টা মেয়ের আছে। সাহেব বাড়ির ঝিমলীকে দেখে ওও বাবার থেকে ব্লেড চুরি করে নিয়মিত পায়ের লোম কাটে। লোমের প্রতি ওর এই বিতৃষ্ঞার জন্যই ও ওর যোনির উপরেও বেশি লোম জন্মাতে দেয়নি। বাইরে এসে দেখল রাজু বাবার সাথে উঠানে মাচা বাঁধছে। Continue reading

খাদক


ফোর্থইয়ারে বসে পার্ট টাইম একটা জায়গায় কাজ করতাম। ঢাকায় সে সময় ফ্ল্যাট বানানোর ধুম, সিভিলের প্রচুর পোলাপান পাশ করার আগেই নানা প্রতিষ্ঠানে কামলা দিত। এখন কি অবস্থা জানি না, তত্ত্বাবধায়কের সময় ধরপাকড়ে অনেককে আবার টুইশনিতে ফিরে যেতে হয়েছিল শুনেছি। আমার বস বললেন, তানিম রাজউকে চল আমার সাথে ডিজাইন পাশের কদ্দুর কি হলো দেখে আসি। উনি আমাদের ইউনিরই, বেশ খাতির করেন, দিনটা নষ্ট হবে তাও রাজী হয়ে গেলাম। পাঁচতলায় আমাকে বসিয়ে বস যে কোন রুমে ঢুকলেন খবর নেই। আমি ওয়েটিং রুমে সোফায় বসে বসে খবরের কাগজ মুখস্থ করছি, পিয়ন এসে বললো, আমি কি অমুক থেকে এসেছেন। বড় সাবে ডাকে। ওদিকে আমাদের এমডির তখনও দেখা নেই। এই রুম সেই রুম খুজে বাধ্য হয়ে একাই চলে গেলাম বড় সাহেবের রুমে। ফিটফাট শার্ট পড়ে চশমা পড়া ভদ্রলোক ফাইলে আমাদের ডিজাইনটাই দেখছেন। বয়স পঞ্চাশ তো হবেই, বেশীও হতে পারে। আমি ঢুকতে চোখ না তুলে বললেন, বসুন। তারপর তাকিয়ে বললেন, এমডি আসে নি

Continue reading

যুবতি গৃহবধুর যৌন কাহিনী part 1


নমস্কার আমার নাম অনেন্দিতা বন্দোপাধ্যায়। আমি আমার জীবনের নানা ঘটনা (বিশেষত যৌন ঘটনা) আজ আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করব। আমার স্বামির নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়। আমার ডাকনাম অনু আর শুভদীপের পাপাই, আমরা এবং আমাদের প্রিয়জনেরা আমাদের এই নামে ডাকি।
প্রথমে আমার কথায় আসি, আমি বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান। আমাদের বাড়ি চন্দননগরে, হাওড়া থেকে ট্রেনে এক ঘন্টা মতন লাগে। আমার বাপের বাড়ি যৌথ পরিবার, আমার বাবা আর আমার দুই জেঠু সপরিবারে থাকে। আমার দুই জঠুরিই একটি করে ছেলে আছে, তাদের বিয়েও হয়ে গেছে। আমার বাবা একজন আধ্যাপক ও মা গৃহবধু। আমার দুই জেঠুই রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে কাজ করতেন, এখন রিটায়ার্ড আর দুই জেঠিমা আর দুই বৌদি গৃহবধু। আমার দুই জড়তোতো দাদা রেলে কাজ করে। বুঝতেই পারছেন আমি এক সচ্ছল মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। আমাদের পরিবারের সবাই মোটামুটি শিক্ষিত হলেও পোশাক আশাকের দিক থেকে খুবই রক্ষণশীল। বাড়ির বউদের শাড়ি ছাড়া আর কোনো পোশাক পরার অনুমতি নেই। আমি বড় হওয়ার পর শুধু সালোয়ার আর শাড়ি পরতাম। আমি সবচেয়ে ছোট হওয়ায় সবাই আমায় শাসন করত, অবশ্যি ভালওবাসতো সবথেকে বেশি।

এবার আমার ব্যক্তিগত বিষয়ে আসা যাক। আমি দেখতে অত্যন্ত সুন্দরি, গায়ের রং খুবই ফর্সা, হাইট ৫’৭” সাধারন বাঙালি মেয়েদের তুলনায় বেশ লম্বা। আমার ফিগারটাও দেখার মত ৩৬সি-২৪-৩৬। তবে সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে আমার মুখশ্রী আর আমার দুটি বড় বড় টানা টানা চোখ। আনেকের মতে আমাকে নাকি আনেকটা ফিল্মস্টারদের মত দেখতে, যাই হোক আমাকে যে ফাটাফাটি দেখতে তা আর বলে দিতে হয় না। Continue reading